ইউনুছ শিকদার : “মা তোর বাড়ীতে আসা হইলো নারে, ও আল্লারে আমার মাইয়্যারে ফিরাইয়্যা দাও ” বলে বুক দাপড়িয়ে কাঁদছে নিহত ছাত্রীর গর্ভ ধারিণী মা মোমেনা।চলমান বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করে ৫ম শ্রেণীতে পড়া হলো না ছবরিনার।নিহত ছবরিনা আক্তার (১০) রামগতি রব্বানীয়া ফাযিল ডিগ্রী মাদ্রাসার ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী তার রোল নং ৬৭। সে বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করে অটো গাড়ীতে চড়ে বাড়ীতে যাওয়ার জন্য আরোহণ করলো কিন্তু ঘাতক ইমা গাড়ী তাকে মায়ের কাছে জীবিত যেতে দিলো না।সরজমিনে গিয়ে জানা যায়,ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা স্থানীয় সংসদ আবদুল্লাহ আল মামুনের বাড়ীর সামনের সড়ক দিয়ে অপর গাড়ীকে দ্রুত অতিক্রম করার সময় অটো থেকে ছবরিনা ছিঁটকে পড়ে গেলে পিছন দিক থেকে বেপরোয়া গতিতে আসা ইমা গাড়ীর চাকার নিচে চাপা পড়ে স্পটে মারা যায় ছবরিনা।জানা যায়,নিহত ছবরিনা ৮ নং বড়খেরী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের মাঈন উদ্দিন ও মোমেনা বেগমের কন্যা।উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজগর আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।ঘাতক অটো রিক্সা ও ইমা গাড়ীকে স্থানীয় চেয়ারম্যান হাসান মাহমুদ ফেরদৌসের নির্দেশে উত্তেজিত জনতা আটক করে।রামগতি রব্বানীয়া ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোয়াজ্জম হোসেন উক্ত ঘটনার সুস্থ্য বিচার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তীর দাবী করেন।নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।