সংবাদ শিরোনাম
নোয়াখালী , ১১ই আগস্ট, ২০১৯ ইং , ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চাটখিল উপজেলা নির্বাচনে আলোচনায় চেয়ারম্যান প্রার্থী যুবনেতা মাসুদুর রহমান শিপন

নিজস্ব প্রতিনিধি:: আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন মাসুদুর রহমান শিপন। তিনি বিগত সময় নেতা কর্মীদের পাশে থেকে এলাকায় রাজনীতি করেন। বিভিন্ন সময় আন্দেলন সংগ্রামে কর্মী সমর্থকদের সাথে নিয়ে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেন। কর্মীদের সুখে-দুখে পাশে থেকে দলকে সুসংগঠিত করেন। শিপনের জম্ম চাটখিল উপজেলার খিলপাড়া গ্রামে। পিতা-মৃত আব্দুল মতিন ছিলেন নৌ বাহিনীর অবসবপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। মাতা-মৃত সুফিয়া বেগম গৃহিনী। সহধর্মীনী- শারমিন রহমান, চাটখিল উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি। ছোট ভাই-সাইফুল ইসলাম বাবু, উপজেলা যুবলীগ সদস্য। নানা-মরহুম রহমত উল্যা কেরানী, খিলপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সহ সভাপতি ও দীর্ঘদিন উনিয়ন পরিষদ সচিব ছিলেন এবং খিলপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে চেয়রম্যান পদে আওয়ামীলীগ থেকে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেন। বড় মামা- মীর হোসেন, খিলপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ বর্তমান সভাপতি। মেঝ মামা- আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম, প্রধানমন্ত্রীর ব্যাক্তিগত সহকারী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক। সেঝ মামা-আলমগীর হোসেন, খিলপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ২ বারের চেয়ারম্যান ও চাটখিল উপজেলা আওয়ামীলীগ শ্রম বিষয়ক সম্পাদক। ছোট মামা- মনির হোসেন, চাটখিল উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহŸায়ক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য। শিপন বর্নাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের অধিকারি। অল্প বয়সেই তিনি দলের নীতিনির্ধারনী মহলের নজর কাড়েন। তিনি ১৯৯৮ সালে খিলপাড়া ইউনিয়নের ৯ নং ওর্য়াড নাহারখিল ছাত্রলীগ সভাপতি, সৌদি আরব প্রবাসে থাকাবস্থায় মক্কার জাবাল-আল নূর শাখার আওয়ামীলীগ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন। প্রবাস থেকে আসার পর ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল প্রর্যন্ত জেলা যুবলীগ সদস্য হিসেবে দায়ীত্ব পালন করেন। এই সময় তিনি চাটখিল উপজেলা যুবলীগকে সক্রিয় করেন এবং ২০১৩-১৪ সালে বিএনপি জামাতের জ্বালাও পোড়াও ও সহিংসতার বিরুদ্ধে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন । ২০১৮ সালে নবগঠিত জেলা যুবলীগ যুগ্ম আহবায়ক নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে জেলা পরিষদ নির্বাচনে ১ নং ওয়ার্ড থেকে মোট ৭৯ ভোটের মধ্যে ৫৩ ভোট পেয়ে চাটখিল পৌরসভা আওয়ামীলীগ সভাপতি বজলুর রহমান লিটনকে পরাজিত করে সদস্য নির্বাচিত হন। পরবরর্তীতে উক্ত জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। মাসুুদুর রহমান শিপন বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত। তিনি নাহারখিল রহমত উল্যা কেরানী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি, নাহারখিল ফয়জুন্নেসা মহিলা দাখিল মাদ্রাসা ও এতিমখানার সিনিয়র সহ সভাপতি, আবিরপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিানুরাগী সদস্য ও উন্নয়ন কিমিটির সদস্য, সাতের দিঘিরপাড় জুনিয়র দাখিল মাদ্রাসা ও এতিমখানার সভাপতি, চাটখিল স্কলার ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল এন্ড কলেজের চেয়ারম্যান, নাহারখিল কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানের সভাপতি, পশ্চিম নাহারখিল বায়তুন নূর জামে মসজিদ এর সভাপতি, কাজিরখিল কাওমী মাদ্রাসা ও এতিমখানার প্রধান উপদেষ্টা, খিলপাড়া ও নোয়াখোলা সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, রহমত উল্যা ও আজিজা ফাউন্ডেশন এর কোষাধ্য, নয়ন বেবি মহিলা কল্যান সংস্থার প্রধান উপদেষ্টা, নয়নপুর বাজার আওয়ামীলীগ কার্যালয় প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, কড়িহাটি বাজার বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, কড়িহাটি বাজার শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, শিবপুর আওয়ামীলীগ কার্যালয় প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, সিংবাহুড়া শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিতষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, শ্রীনগর আওয়ামীলীগ কার্যালয় প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, খিলপাড়া বাজার শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, সাধুরখিল শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, প্রতিশ শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, দেওটি বাজার বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, নান্দিয়াপাড়া বাজার বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, নান্দিয়াপাড়া চৌরাস্তা শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, মোহিতখোলা বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, আবিরপাড়া বাজার শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, কুমারঘরিয়া বটখিল শেখ রাছেল স্মৃতি সংসদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, কেশারখিল বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান উপদেষ্টা, খিলপাড়া ইউনিয়ন কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতি, নয়নপুর বাজার কমিটির সভাপতি, কাজিরখিল বাজার কমিটির প্রধান উপদেষ্টা, নাহারখিল কুমারবাড়ি রাধাকৃষ্ণ মন্দিরের উপদেষ্টা, নাহারখিল দামেরবাড়ি মন্দির উপদেষ্টা, খিলপাড়া বাজার কালি মন্দির উপদেষ্টা, শিবপুর দূর্গা মন্দিরের উপদেষ্টা।
এছাড়াও তিনি মোহনা টেলিভিশন নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক নোয়াখালীর পাতা পত্রিকার প্রকাশক,
বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংবাদিক পরিষদ কেন্দীয় কমিটির সহ-সভাপতি, চৌমুহনী প্রেসকাবের সদস্য ও নোয়াখালী চেম্বার অব কমার্স এর সদস্য।
একজন সফল জনপ্রতিনিধি হিসেবে শিপন বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সম্পন্ন করেন। এরমধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হচ্ছে-চাটখিল উপজেলার ৩২টি মসজিদে অনুদান, চাটখিল উপজেলার ১৭টি মাদ্রসা ও এতিমখানায় অনুদান, চাটখিল উপজেলার ৮টি ঈদগাহ মাঠে অনুদান, চাটখিল উপজেলার ২৭টি গ্রমীন সড়ক অবকাঠামো উন্নয়ন, প্রতিবছর শীতকালে এলাকার গরীব অসহায় মানুষদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরন, গরীব- অসহায় ছাত্র-ছাত্রীদের শিা উপকরন বিতরন, এলাকায় যুবকদের মাদক থেকে বিরত রেখে ভালো কাজে উৎসাহিত করতে ফুটবল, ক্রিকেট ও ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট আয়োজন এবং বিভিন্ন সময় খেলাধূলার উপকরন বিতরন, ধর্মীয় ও সামাজিক আচার অনুষ্ঠানেও সক্রিয় অংশগ্রহন করে অনুদান প্রদান করেন।
শিপন একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হিসেবে সর্বজন স্বীকৃত। তিনি মেসার্স মাসুদুর রহমান ঠিকদারী প্রতিষ্ঠান ও ডিলারশিপ প্রোপাইটর, স্কাই রিএ্যারেঞ্জ এর পরিচালক, সারিকা ডিজিটাল সাইন এর প্রোপাইটর, সারিকা ও সানিতা এন্টারপ্রাইজ এর প্রোপাইটর।
চাটখিল উপজেলার দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের কাছেও সমান জনপ্রিয় মাসুদুর রহমান শিপন। দলের নেতাকর্মীরা মনে করেন চাটখিল উপজেলায় চেয়ারম্যান হিসেবে শিপনের বিকল্প নেই।
এক প্রতিক্রিয়ায় চাটখিল উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদুর রহমান শিপন জানান, আমি দীর্ঘদিন এলাকায় সমাজসেবার সাথে জড়িত। যতটুকু পেরেছি উন্নয়ন মূলক কাজ করেছি। দলের কাছে মনোনয়ন চাইবো। আমি আশা বাদি, দল যদি মনোনয়ন দেয় চাটখিলকে একটি আধুনিক উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে চেষ্টা করবো।

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*